টলিউডের কালো দিক ফাঁস করলেন অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র, দেখুন ভিডিও

1577
- Advertisement -

Image Source : Google

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু নাড়িয়ে দিয়েছে গোটা দেশকেই। দেশের সাধারণ মানুষ এখন বয়কট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রভাবশালী কিছু পরিচালক এবং স্টারকিডদের সিনেমা। এই আন্দোলন ভবিষ্যতে কতটা মানুষ মনে রাখবে তার থেকেও বড় কথা সুশান্তের মৃত্যুতে এভাবে মানুষের বিদ্রোহ বুঝিয়ে দিচ্ছে একশ্রেণীর মানুষের নেপটিজম এবং ক্ষমতার আস্ফালনকে তারা মোটেই ভালোভাবে নিচ্ছে না।

- Advertisement -

তবে ক্ষমতার আস্ফালন কি শুধুমাত্র বলিউডেই রয়েছে? টলিউডে নেই? আলবাত রয়েছে। এমনটাই মনে করেন টলিউড অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। একদ দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে টলিউডের সঙ্গে যুক্ত শ্রীলেখার গলায় শোনা গেল হতাশা। সুশান্তের মৃত্যুতে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে মুখ খুললেন তিনি। তিনি বলেন, “১৯৯৭-৯৮ যখন অভিনয় করতে আসি তখন জুটি হিসেবে হিট প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা। কোনওদিনই মুখ্য চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পেলাম না। সবদিনই নায়িকার বোন, দিদি হয়েই থাকতে হল। এমনকী জুটিও তৈরি করতে পারলাম না।

আসলে আমি ক্যামেরার সামনে ভালো নাটক করতে পারি। কিন্তু ক্যামেরাটা বন্ধ হয়ে গেলে অভিনয়টা আর করতে পারি না। ফলে প্রথম দিন থেকেই আমি এখানে ঠিক খাপ খাওয়াতে পারলাম না। কিন্তু মুখে বলা হত আমি অভিনয়টা ভালো পারি। হিরোইন হওয়ার যোগ্য। কিন্তু সব ঠিক হয়ে যাওয়ার পরই কীভাবে যেন বাদ পড়ে যেতাম…আজ আমার বাড়ির নীচে দামি গাড়ি সার দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে না। কিন্তু আমার রাতের ঘুমটা তাঁদের থেকে অনেক ভালো হয়। নিজের শর্তে খুব ভালো আছি। যদিও আমি কিন্তু ডিপ্রেশনের রোগী। আমার অভিমান খুব ব্যক্তিগত। আমি কাজ পাওয়ার জন্য প্রেম করতে চাইনি। কোনও ঢলানিপনা নেই। আমি সৎ, আমি যখন থাকব না তখন যাতে আমার সততাটুকু থেকে যায় সেই চেষ্টাই করেছি। আমি কাঁধ চাই না। আমার কাঁধ খুব শক্ত। আমার কাঁধেই অনেকে মাথা রাখতে পারে’।

এর থেকেই স্পষ্ট বলিউডের ন্যায় ক্ষমতার আস্ফালন টলিউডেও হয়েই থাকে। তবে নিজের বক্তব্যের জন্য কেউ আঘাত পেলে তার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন শ্রীলেখা। এসব দলবাজি, নোংরামি ছেড়ে দূরে বাড়ি বানিয়ে পোষ্যদের সঙ্গে শান্তিতে থাকতে চান অভিনেত্রী। তিনিও মানসিক অবসাদের রুগী তবে তিনি স্ট্রং, হেরে যেতে শেখেননি মোটেই। এমনি দাবি শ্রীলেখা মিত্রের।

আরোও পড়ুন :