ফেসবুকে আপলোড করা গানই বদলে দিলো ভাগ্য, বলিউডে এবার হুগলির চাঁদমণি হেমব্রম

138
- Advertisement -

Image Source : Google

২০১৯ সালে রানাঘাট স্টেশনের রাণু মন্ডল লতা মঙ্গেশকরের গান গেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে জায়গা পেয়েছিলেন হিমেশ রেশমিয়ার স্টুডিওতে। আর এবার তেমনই একটি চমৎকার দেখা গেল, হুগলির ইটাচুনা গ্রামের সাঁওতাল আদিবাসী চাঁদমণি হেমব্রম। সে এখন হুগলির সারদাশ্বরী বিদ্যাপীঠের দশম ক্লাসের ছাত্রী।

- Advertisement -

নেহা ককরের ‘ও হামসফর’ গানটি গেয়েছিল চাঁদমণি। বাড়িতে তিন বোনের মধ্যে সবথেকে বড় সেই। দশ বছর আগে বাবা মারা যাওয়ার ফলে সংসারের হাল ধরতে হয়েছিল তাঁকে। মায়ের সঙ্গে ধানের বীজ রোয়ার পাশাপাশি পড়াশোনা এবং গান তার নিত্যসঙ্গী। চাঁদমণির গাওয়া একটি গান শ্যাম হাঁসদা নামক এক ব্যক্তি রেকর্ড করেন ফোনে এবং স্কুল শিক্ষক চিরঞ্জিত ধীবর নিজের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে সেটি আপলোড করে দেন। তারপরই সেটি ভাইরাল হয়ে যায় এবং বলিউড থেকে যোগাযোগ করা হয় চিরঞ্জিত বাবুর সঙ্গে।

পঞ্জাবের খ্যাতানামা শিল্পী আয়শান আদ্রির মিউজিক ডিরেকশানে মুক্তি পেতে চলেছে চাঁদমণির ‘জুদাইয়া বে’। গানটি লিখেছেন আরবান স্বরাজ। বড় কোনো মিউজিক কোম্পানি দ্বারা এই গানটি প্রমোট করা হবে এবং সেই সঙ্গে ইন্ডিয়ান আইডলেও যোগ দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে চাঁদমণি কে। সব মিলিয়ে এক নতুন জীবন সামনে আদিবাসী কিশোরীর।

আরোও পড়ুন :