হনুমানজির জপ করে কালো সূতো পরলে কি হয় জানেন ? অবাক হবেন

398
- Advertisement -
Image Source : Google

আমাদের সবারই জীবনে কিন্তু রং-এর একটা বিশেষ প্রভাব রয়েছে৷ এটাও শোনা যায় যে, বিভিন্ন বিভিন্ন জনের আবার নাকি বিভিন্ন রংয়ের মাধ্যমে তাঁদের ভাগ্য খোলে৷ কিন্তু কখনও ভেবেছেন যে এই রং যদি কখনো আপনার বিপক্ষে চলে যায় তাহলে আপনার ভাগ্য আর সোজা পথে নয়,উল্টো পথে হাঁটতে শুরু করে৷ আপনার স্বাস্থ্য, চিন্তা-ভাবনা এবং পরিস্থিতির উপরে এই রংয়ের অনেক প্রভাব রয়েছে৷ তবে হ্যাঁ এই রং কিন্তু কোনও রাজনীতির রং৷ অনেক বিশ্বাস-অবিশ্বাসের মতবাদ শোনা যায় এ বিষয়ে৷ তবে ওসবে কান না দিয়ে আসুন জেনে নেওয়া যাক এই রংয়ের কিন্তু গুরুত্ব :-

- Advertisement -

কালো রং-কে আমলা অনেকেই অশুভ বলে মনে করি৷ তাই বিয়ে বা অন্য কোনও শুভ কাজে আমরা কখনোই এই রং ব্যবহার করি না৷ কালো রং ব্যবহার করলে নাকি রাহুতে তার প্রভাব পড়ে বলে মনে করেছেন অনেকেই৷ যা আমাদের জীবনে ভয়ংকর সমস্যা ডেকে আনতে পারে৷ কিন্তু আমরা হয়তো এটাই কেউ জানিনা যে এই কালো রং আমাদের জীবনের অনেক সমস্যাও কিন্তু দূর করতে পারে৷ এমনকি আমাদের আর্থিক সঙ্কট থাকলেও এই কালো রং অনেকটাই উপকারী৷

আপনিই একবার ভাবুন তো এই কালো রং যদি আমাদের জীবনে কখনও অমঙ্গল-ই ডেকে আনত তাহলে আমরা কেন কোনও খারাপ নজর থেকে বাঁচতে কালো টিকা বা কালো কার পড়ি!, ভেবেছেন কখনও? কেনই বা কালো সুতো ঘরের দরজায় বাঁধা হয়?

এটাও মনে করা হয় যে, কালো রং যে কোনও খারাপ জিনিসকে শোষণ করে নিয়ে আপনাকে বিপদ থেকে বের করে আনে৷ অনেকেই মনে করেন যে, মঙ্গলবার এবং শনিবার হনুমানজির পা-এ কালো সুতো রেখে পুজো করার পর তা যদি গলায় পড়া যায় তাহলে যে কোনও খারাপ দূর্ঘটনা অথবা আসন্ন বিপদ থেকে আপনি মুক্তি পাবেন৷ যদি ধনসম্পত্তি ও ঐশ্বর্য পেতে চান তাহলে সপ্তাহের এই দুটো দিনে মনে করে কালো রং-এর একটি রেশমি সূতো কিনুন, তার পর সেটা নিয়ে হনুমানজির মন্দিরে যান, গিয়ে তাঁর পায়ের সামনে বসে হনুমান চালিশা পড়তে পড়তে ওই কালো সুতোটিতে ৯টা গিঁট দিন৷ গিঁট দেওয়ার পর সেই সুতোতে বজরঙ্গবলির পায়ে যে সিঁদুর লাগনো হয়, তার অল্প একটু সিঁদুর নিয়ে ওই সুতোতে লাগান৷ এরপর হনুমানজির নাম জপ করতে করতে এই সুতোটি নিজের বাড়িতে নিয়ে চলে আসুন৷ বাড়ি ফিরে মেন গেটে সুতোটি বেঁধে দিন৷ শোনা যায় আপনিই যদি এটা করেন তাহলে নাকি আপনার বাড়িতে সুখ সমৃদ্ধি বিরাজ করবে৷ আপনি এটিকে আবার আপনার সিন্দুকেও বেঁধে রাখতে পারেন৷ তাতে অর্থ আসবে, বেরিয়ে যাবে না৷ যদিও হ্যাঁ এসব নিয়ে কিন্তু অনেকেই তর্ক-বিতর্কে জড়াতে পারেন৷ আবার অনেকের কাছেই কিন্তু এটাই তাঁদের উন্নতির একটি প্রধান উপায়৷

আরোও পড়ুন :